বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে সহবাসের অভিযোগ সাংসদের বিরুদ্ধে, অভিযোগ অস্বীকার, পাল্টা অভিযোগ ঋতব্রতর

বালুরঘাটঃ রাজ্যসভার সাংসদ ঋতব্রত বন্দ্যোপাধ্যায়ের পিছু ছাড়ছে না বিতর্ক । তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা একাধিক অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ার পরই মাস খানেক আগে তাঁকে বহিষ্কার করে CPI(M)। এর মাঝেই বান্ধবীর সঙ্গে তাঁর কয়েকটি ঘনিষ্ঠ ছবি সোশাল মিডিয়ায় সামনে আসে। তা নিয়ে ফের বিতর্কের মুখে বহিষ্কৃত সিপিএম সাংসদ। এবার বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে সহবাসের অভিযোগ আনলেন বালুরঘাটের এক যুবতি। এমনকী টাকা দিয়ে তাঁর মুখ বন্ধের চেষ্টা করা হচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন পেশায় সফটওয়ার ইঞ্জিনিয়ার নম্রতা দত্ত।


তাঁর অভিযোগ, ২০১৬ সালে টুইটারে প্রথম পরিচয় হয় সাংসদের সাথে। দিল্লিতে সাংসদের নিজস্ব আবাসনে দেখা করতেও যান নম্রতা দেবী। সেখান থেকেই গভীর হতে শুরু করে তাঁদের সম্পর্ক। ঋতব্রত বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে একাধিকবার বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হওয়ার অভিযোগও করেন নম্রতা দত্ত। তিনি অভিযোগ করে সংবাদ মাধ্যমের সামনে বলেন, দীর্ঘদিন শারীরিক সম্পর্ক রাখার পর এখন বিয়ে করতে রাজি হচ্ছেন না ঋতব্রত। ঘটনা ধামাচাপা দেওয়ার জন্য ৫০ লক্ষ টাকা দেওয়ার প্রতিশ্রুতিও দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন ওই যুবতি। সাংসদের অপর এক মহিলা বান্ধবীকে দিয়ে খুন, ধর্ষণের হুমকিও নাকি দেওয়া হয়েছে তাঁকে বলে অভিযোগ করেন নম্রতা দেবী।


এদিকে নিজের বিরুদ্ধে ওঠা সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করে নম্রতা দেবীর বিরুদ্ধে গত ৬ অক্টোবর কলকাতার গরফা থানায় পাল্টা অভিযোগ দায়ের করেছেন সাংসদ ঋতব্রত বন্দ্যোপাধ্যায়। টুইটারে সেই অভিযোগ পত্রের ছবি ও নম্রতা দেবীর সাথে হোয়াটসঅ্যাপে কথোপকথনের একটি স্ক্রিন শটও আপলোড করেছেন সাংসদ।


নম্রতা দেবীর বিরুদ্ধে গরফা থানায় দায়ের করা অভিযোগ পত্রে ঋতব্রত বন্দ্যোপাধ্যায়ের দাবী, নম্রতাকে তিনি ব্যাঙ্ক থেকে ঋণ পাইয়ে দিতে সাহায্য করেছিলেন। তারপর থেকে বার বার ওই তরুণী টাকা চাইতে শুরু করেন। চলতি বছরের ২০ জুলাই চিকিৎ‍সার জন্য তরুণী ফের টাকা চাইলে তিনি ২ লক্ষ ২৫ হাজার টাকা দেন। কিন্তু, চাহিদা দিন দিন বাড়তে থাকে। অভিযোগ, তিনি টাকা দিতে পারবেন না বলতেই চাপ তৈরি করতে শুরু করেন তরুণী। হোয়াটসঅ্যাপে তাঁকে হুমকি দিয়ে বলা হয়, ১৫ অক্টোবরের মধ্যে ৫০ লক্ষ টাকা না দিলে মামলা করা হবে। ঋতব্রতর দাবি, ৪ অক্টোবর তিনি নম্রতা দত্তকে ফের আড়াই লক্ষ টাকা দেন। তারপরেও হুমকি চলতে থাকে বলে অভিযোগ করেন তিনি। সাংসদের অভিযোগ, রাজনৈতিক কেরিয়ার এবং সম্পত্তি নষ্ট করার জন্য রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভাবে মিথ্যে অভিযোগ করা হচ্ছে তাঁর বিরুদ্ধে।


এদিকে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে সহবাসের অভিযোগের পাশাপাশি সংবাদমাধ্যমের কাছে নম্রতা দত্তের দাবী, যেই দামি ঘড়ি নিয়ে বিতর্ক সে ঘড়িটি তিনিই ভালোবেসে ঋতব্রতকে দিয়েছিলেন। এমনকী ঋতব্রতর নেদারল্যান্ডসে যাতায়াত থেকে শুরু করে সব খরচই তিনি বহন করেছিলেন বলেও দাবি করেছেন ওই যুবতি। তিনি টাকা চান না। তিনি বিচার চান বলে সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন সফটওয়ার ইঞ্জিনিয়ার নম্রতা দত্ত।

No comments

Powered by Blogger.